কাতলামারী ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ দিয়ে চলাচল করছে যানবাহন: বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা।

কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার কাতলামারী মদন মাস্তানের মাজার সংলগ্ন ডি-৫এম খালের উপরের ব্রিজটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পরছে ।

নিজেস্ব প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার কাতলামারী মদন মাস্তানের মাজার সংলগ্ন ডি-৫এম খালের উপরের ব্রিজটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পরছে । প্রতিদিনই ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন,এতে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। ব্রিজটির কারণে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে চলাচলকারী সকল শ্রেনী পেশার মানুষ।ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজটির উপর দিয়ে দিনরাত হাজার হাজার টন মালামাল ও যাত্রী নিয়ে জীবনের তাগিতে প্রতিদিনই ছোট,বড়,ভারী দুই হাজার যানবাহন চলাচল করছে।

কুষ্টিয়া জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা দৌলতপুর সহ বিভিন্ন সড়কের ভারি যানবাহন যাতায়াত করে এ ব্রিজ দিয়ে। কিন্তু দীর্ঘদিন সংস্কারের অভাবে গুরুত্বপূর্ণ এই ব্রিজটি দিন দিন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। স্থানীয়দের ধারণা যেকোনো সময় ব্রিজটি ধসে ভয়াবহ ক্ষতি হতে পারে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী প্রথম নির্মীত ব্রিজটির একটি অংশ বোমা দিয়ে উড়িয়ে দেয়। স্বাধীনতার পরবর্তী সময় ১৯৭৫সালে পাশেই নির্মান করা হয় এই ব্রিজটি। দীর্ঘ দিন সংস্কার না হওয়ায় নষ্ট হয়ে গেছে ব্রিজটির ঢালাই, এছাড়াও ভারি যানবাহন চলাচলের ফলে ব্রিজটির দক্ষিণ অংশ ঢোশে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে ব্রিজটি ঝুঁকি পূর্ণ ভেবে আবার অনেক ভারী যানবাহন দূর হলেও যাচ্ছে বিকল্প রাস্তায়। কৃষি বান্ধব এ উপজেলার উভয় পারের কৃষকেরা তাঁদের জমির ফসল বিক্রির জন্য এ সেতুর ওপর দিয়ে গাড়িতে করে নিয়ে যান বিভিন্ন পাইকারী বাজারে। ঝুকিপূর্ন এ ব্রিজ দিয়ে ট্রাক,মিনিট্রাক, সিএনজি, অটো রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়িসহ প্রায় সব ধরনের যানবাহনই চলাচল করছে ।

সংস্কারের অভাবে দীর্ঘ দিনের অবহেলিত সাগরখালী নদীর উপরের এ ব্রিজটি মেরামত করে চলাচলের উপযোগী করে জীবন ঝুকি থেকে মুক্তি দিবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এমনটাই প্রত্যাশা এলাবাসীর। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড আমলা শাখার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শাহিনুজ্জামান‌‌ ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ স্বীকার করে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা কে বিষয়টি অবহিত করে দ্রুত সংস্কারের আশ্বাস দেন ।