কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার গৃহবধূকে নির্যাতনের পর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার অভিযোগ।

213

ভেড়ামারা প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ মির্জাপুর হাবড়ীপাড়ার মেয়ে রাণী খাতুন (২২) কে শ্বাশুড়ী ও স্বামী কতৃক নির্যাতনের পর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার অভিযোগ তুলেছে রাণী খাতুনে পরিবার। জানাযায়, ৩ বছর পূর্বে সামাজিক ভাবে মির্জাপুর হাবড়ীপাড়া এলাকার আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রানী খাতুন ও পার্শ্ববর্তী গ্রাম পরানখালীর মাহাবুলের ছেলে রফিকুল বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর থেকেই নানা বিষয়ে শ্বাশুরী ও স্বামীর নির্যাতনের স্বীকার হয়েও সংসার চালিয়ে যায় রানী খাতুন, ১৩ মাস পূর্বে তাদের কোল জুড়ে আসে ফুটফুটে এক ছেলে সন্তান। নির্যাতনের পরও সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে ও ভবিষৎ এর কথা চিন্তা করে সংসার ছাড়তে পারেনি রানী খাতুন।

গত ৬ তারিখ শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে শ্বাশুড়ী ও স্বামী মারপিঠ আরম্ভ করে পরে রাণী খাতুন দূর্বল হয়ে পড়লে মুখে বিষ ঢেলে খাইয়ে দেয় এমন আভিযোগ করেন রানী খাতুনের মা, পরবর্তীতে রাণী খাতুনের আবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন তার স্বামী।

সেখানে আবস্থার অবনতি হলে রাজশাহীতে নেওয়ার পরামর্শ দেয় কর্তব্যরত চিকিৎসক । পরে রাজশাহীতে নেয়ার পর রোববার গৃহবধূ রাণী খাতুনের মৃত্যু হয়। আজ সোমবার পোষ্টমার্টেম শেষে রাণী খাতুনের লাশ বাপের বাড়ীতে নিয়ে আসে তার পরিবার। এবং বাদ আছর জানাযা শেষে দাফন সম্পন্য হয়। তবে স্বামী বা শ্বশুর বাড়ীর কাউকে পাওয়া যাইনি জানাযা ও দাফন কার্যে। রাণী খাতুনের চাচী অভিযোগ করেন, লাশ গোসল দেওয়ার সময় শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়। এব্যাপারে হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে রাণী খাতুনের বাবা আনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন।