1. zillu.akash@gmail.com : admi2017 :
  2. editor@dailynewsbangla.com : Daily NewsBangla : Daily NewsBangla
রাবিতে ফ্রুটস হান্টের 'রস উৎসব' উদযাপন - dailynewsbangla
মঙ্গলবার, ৩০ মে ২০২৩, ০৯:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
নৌকার গণজোয়ার তুলতে দিনব্যাপী নাগরপুর দেলদুয়ারে ব্যস্ত জননেতা তারেক শামস্ খান হিমু মোহনপুরের আলোচিত শিশু আয়েশা হত্যার দায় স্বীকার করলো মা!! রাজশাহীর বাগমারায় মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন সামাজিক বনায়ন প্রশিক্ষণ কর্মশালার  উদ্বোধন করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ভোদন স্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি- অসুস্থ বৃদ্ধর গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা দৌলতপুরে ইতিহাস সৃষ্টি করলেন যুবলীগ সভাপতি টোকেন চৌধুরী সাবেক প্রতিমন্ত্রী এ‍্যাড. গৌতম চক্রবর্তীর ১ম মৃত্যুবার্ষিকীতে নাগরপুর উপজেলা বিএনপি বিএনপি দেশের শান্তি শৃঙ্খলা নষ্ট ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে চায়: শিক্ষামন্ত্রী রাজশাহীর মোহনপুরে ৩৬ দিনের শিশুকে হত্যা টাকার বিনিময়ে যুবলীগ কর্মীকে নাশকতার মামলা দিলো পুলিশ

রাবিতে ফ্রুটস হান্টের ‘রস উৎসব’ উদযাপন

ডেইলী নিউজ বাংলা ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২১

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় রাবিতে উদযাপিত হলো ‘ রস উৎসব’। বাংলায় একসময় শীতের সকালে ‘খেজুর রস উৎসব’ ছিল ব্যাপক জনপ্রিয়। প্রায় হারিয়ে যওয়া সেই ঐতিহ্যকে লালন করতে ও রসের স্বাদ উপভোগ করতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী জুয়েল মামুনের উদ্যোগে পরিচালিত ‘ফ্রুটস হান্ট’ এই রস উৎসবের আয়োজন করেছে। মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে সকাল থেকেই দর্শনার্থীরা আসতে শুরু করে। একপর্যায়ে প্রায় অর্ধ-শতাধিক দর্শনার্থীর উপস্থিতি দেখা যায়। সুস্বাদু খেজুর রস পান করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মহোদয়, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীসহ অনেকেই ভিড় জমান। ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক জি.এম শফিউর রহমান বলেন, ‘অনেক দিন পর রস উৎসবে আসলাম সত্যি আমার খুব ভালো লাগছে। সন্তানদের নিয়েই এসেছি। তারাও এই প্রথম খেজুরের রস খাচ্ছে। আমি ধন্যবাদ জানাই আয়োজক’কে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, অনেক দিন পর শীতের সকালে খেজুর রসের আয়োজন হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আজকের এ রস উৎসবে সবাই আসছে। সত্যি অনেক ভালো লাগছে। এরকম উৎসব প্রতি বছর হোক এমন প্রত্যাশা করছি।’আয়োজক জুয়েল মামুন বলেন, ‘আগের তুলনায় আমাদের দেশে খেজুর গাছের সংখ্যা কমে গেছে। ফলে সুস্বাদু পানীয় রস আর দেশের সর্বত্র পাওয়া যায় না। হারিয়ে যাওয়ার পথে সেই খেজুরের রসের গৌরব ফিরিয়ে আনতে এই ‘রস উৎসবের’ আয়োজন করেছি।’

তিনি আরো বলেন, আমাদের ‘রস উৎসবে’ শতাধিক দর্শনার্থী উপস্থিত ছিল। শীতের সকালে খেজুরের রস পান করার মধ্যে বাংলার ঐতিহ্য ফুটে উঠে এবং বাংলার মানুষদের অতীত মনে করিয়ে দেয় এটি। তবে রস পান করার ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। আমরা যথেষ্ট সতর্কতার সাথে রস সংগ্রহ করে এই মেলার আয়োজন করেছি।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ