1. zillu.akash@gmail.com : admi2017 :
  2. editor@dailynewsbangla.com : Daily NewsBangla : Daily NewsBangla
সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
দশমিনায় ইউএনও করোনায় আক্রান্ত লক্ষ্মীপুরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্য নির্বাহী সংসদের সভা অনুষ্ঠিত রাজশাহীতে ভোট কারচুপির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন : চাই ভোট পুনর্গণনা দশমিনায় আশ্রায়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের শীতে কাঁপে হাড় দৌলতপুরে বৈদ্যুতিক সট সার্কিট থেকে আগুনঃ পুড়ে ছাই আসবাবপত্র টাঙ্গাইলে ৪ কেজি গাঁজা সহ গ্রেফতার মাদক সম্রাট জহুরুল উত্তরাঞ্চলে রবি মৌসুমে আলুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা ফরিদপুরের মধুখালী থেকে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ মেহেরপুরের গাংনীর পল্লীতে মধ্যরাতে অগ্নিকান্ড! ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি লক্ষ্মীপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৫ হাজার অসহায় মানুষের মাঝে শীতার্তের কম্বল বিতরণ করা হয়েছে

মদনে হিট শকে ৫ হাজার ৯৫৮ হেক্টর জমির বোরো ফসলের ক্ষতি হয়েছে

ডেইলী নিউজ বাংলা ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১

মদন (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি: গত ৪ঠা এপ্রিল রোববার সন্ধ্যার হঠাৎ আচমকা গরম বাতাসে নেত্রকোণা হাওররাঞ্চল মদন উপজেলার বিভিন্ন হাওরে অন্তত ৫ হাজার ৯৫৮ হেক্টর বোরো মৌসুমের ধান ক্ষতি হয়েছে। এতে দিশেহারা হয়ে পড়ছেন হাওরাঞ্চলের কৃষক- কৃষাণীরা। ক্ষতিগ্রস্থ ফসলের মধ‍্যে রয়েছে, হাইব্রীড হীরা ও বি২৯ জাতের ধান।

গাজীপুর ধান গবেষণা ইনস্ট্রিটিউটের রোগ তত্ব বিভাগের প্রধান সিনিয়র বৈজ্ঞানিক ড. মো: আশিক ইকবাল খানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি পর্যবেক্ষক দল মদনের ক্ষতিগ্রস্ত হাওরগুলো পরিদর্শন করেছেন। বৈজ্ঞানিক দল তাঁদের মতামতে জানান, ধানের ফুল ও দুধ অবস্থায় তাপ প্রবাহের কারণে ফসলের এই ক্ষতি হয়েছে। যাকে হিট শক বলা হয়।

এর অন‍্যতম কারণ হলো, আবহাওয়ার পরিবর্তন ফলে দীর্ঘদিন ধরে এই এলাকায় বৃষ্টিপাত হচ্ছিল না। যদি বাতাসের সাথে বৃষ্টি হতো তাহলে এই পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হতো না। মদন উপজেলা কৃষি অফিসার রায়হানুল হক বলেন, গরম বাতাসে ফসলের যে ক্ষতি হয়েছ শিলা বৃষ্টি হলেও এমন ক্ষতি হতো না।

হাওরে যে ধান গাছগুলোতে ফ্লাওয়ার এসেছিল সেগুলো এখন রোদে শুকিয়ে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত ৫ হাজার ৯৫৮ হেক্টর জমির ধান ক্ষতি হয়েছে। উপজেলায় ৫০০০ হাজারের বেশি কৃষক পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

আমরা কৃষকদের জমিনে পানি ধরে রাখার পরার্মশ দিচ্ছি। এবং যেসব ফসলের ক্ষেতে এখনও শীষ বের হয়নি, সে সব জমিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি ধরে রাখার পাশাপাশি ১০ লিটার পানিতে ৬০ গ্রাম এমওপি সার, ৬০ গ্রাম থিওভিট,ও ২০ গ্রাম চিলেটেড জিংক মিশ্রণ করে স্প্রে করার পরামর্শ নিয়েছে বিজ্ঞানীরা। এতে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কায় থাকা ধান গাছগুলো কিছুটা শক কাটিয়ে উঠতে পরবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘গরম বাতাসে ধানের প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। এমন ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি। গত ৬ই এপ্রিল মঙ্গলবার সকালে গাজীপুর ধান গবেষণা ইনস্ট্রিটিউট থেকে বিজ্ঞানীরা এসেছিলেন। তাঁরা মদনের বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্থ হাওর পরিদর্শন করে প্রাথমিকভাবে বলছেন এটা হিট শক এর জন্য হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ