1. zillu.akash@gmail.com : admi2017 :
  2. editor@dailynewsbangla.com : Daily NewsBangla : Daily NewsBangla
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
রাসিক মেয়রের সহযোগিতায় হুইলচেয়ার পেলেন প্রতিবন্ধী জেসমিন খাতুন আসন্ন উপ-নির্বাচনে মহিলা সমর্থকদের রাসেলের পক্ষে ভোট প্রার্থনা ও পথসভা মহাদেবপুরে তথ্য অফিসের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্টিত দশমিনায় চলছে পূজা মন্ডপে প্রস্তুুতি, ব্যস্ত সময় পার করছে মৃৎ শিল্পীরা দশমিনায় ইউপি সচিব ও তথ্য সেবক এর বিরুদ্ধে জন্ম সনদে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ দৌলতপুরে বাদশাহ্ এমপি’কে বরণ করতে হাজারো মানুষের ঢল দশমিনায় তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় আপীল বিভাগ খুনীদের ফাঁসি বহাল উৎসবমুখর পরিবেশে নওগাঁয় আদিবাসী উড়াও সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব পালিত চার লেন সড়ক উন্নীতকরণ কাজের উদ্বোধন করলেন রাসিক মেয়র লিটন পটুয়াখালী জেলা পরিষদ কর্তৃক স্থাপিত বীর মুক্তিযোদ্ধা ভাস্কর্য উদ্বোধন

ই-জিপি টেন্ডারের নামে চলছে পশ্চিমাঞ্চল রেলের দুর্নীতি

ডেইলী নিউজ বাংলা ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১

মাজহারুল ইসলাম চপল, ব্যুরো চীফঃ দেশের গণপরিবহন বিভাগের অন্যতম অংশ বাংলাদেশ রেলওয়ে। আর উত্তরবঙ্গের অন্যতম ভরসা পশ্চিমাঞ্চল রেল। কিন্তু পশ্চিমাঞ্চল রেলের দুর্নীতি যেন থামছেই না। একের পর এক দুর্নীতি করে পার পেয়ে যাচ্ছে প্রভাবশালী ঠিকাদাররা। যদিও সম্প্রতি পশ্চিমাঞ্চল রেলের চারজন অফিসারকে দুর্নীতির দায়ে বরখাস্ত করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

তবে অভিযুক্ত জিএমসহ অন্যান কর্মকর্তারা এখনো বহালতবিয়তে রয়েছে। যে সকল ঠিকাদারকে ঘিরে এই সকল দুর্নীতি, তাদেরকেই ঘুরে ফিরে কাজ দিচ্ছেন রেলের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা। ইজিপি’র নামে কারসাজি করে পছন্দের ঠিকাদারকে দেওয়া হচ্ছে কমিশনভিত্তিক কাজ। সম্প্রতি পশ্চিম রেলে যোগ হয়েছেন প্রধান প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম ফিরোজী। সেও যোগদানের পর ঠিকাদারের নিকট থেকে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা ঘুষ গ্রহন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

গোপনসুত্র বলছে, রেলের চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ ঠিকাদারদের একক দৌরাত্ম নিয়ে ২০ সালে রেলপথ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সদস্যরা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে সাবেক ডিজি শামসুজ্জামানকে নানান কথা শুনিয়েছিলেন। কারণ একটি সিন্ডিকেটকে রেলের শত শত কোটি টাকার কাজ নজিরবিহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে দেওয়ার একাধিক অভিযোগ সংসদীয় কমিটিতে জমা পড়েছিল। ওই সিন্ডিকেট দেওয়া সব টেন্ডার পর্যালোচনা করে কমিটির সদস্যরা দেখতে পান প্রতিটি ক্ষেত্রেই গুরুতর অনিয়ম হয়েছে।

ওই সিন্ডিকেটটি গত কয়েক বছরে বাগিয়েছেন রেলের শত শত কোটি টাকার কাজ। ডিজির বন্ধু পরিচয়ে তার এই দৌরাত্ম নিয়ে সংসদীয় কমিটি চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল। অনিয়ম বন্ধে ব্যবস্থা নিতে রেল সচিব ও ডিজিকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। করেছিলেন তদন্ত উপ-কমিটি। কিন্তু তাতে বিশেষ কিছু হেরফের হয়নি।

অন্যদিকে ব্যালাষ্ট (পাথর) সরবরাহে অনিয়মের দুদকের অনুসন্ধান চলমান রয়েছে এমন সব প্রতিষ্ঠানকে আবারও একই ধরনের কাজ দেওয়ার অভিযোগ করেছেন রেল ঠিকাদারদের একটি অংশ। তারা বলছেন এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কাজ না করেই বিপুল পরিমাণ টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগের অনুসন্ধান চলমান আছে দুদকে। এরপরও দুর্নীতিতে জড়িত এইসব প্রতিষ্ঠানকে ৯টির মধ্যে ৬টি গ্রুপের কাজ ভাগাভাগি করে দেওয়া হয়েছে। ইজিপির কারসাজিতে এই কাজগুলো দেওয়া হচ্ছে এই সকল দুর্নীতিবাজ প্রতিষ্ঠান গুলোকে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সম্প্রতি পশ্চিম রেলের ইজিপি টেন্ডারেও গুরুতর কারসাজির মাধ্যমে একটি কনষ্ট্রাকশানকে প্রায় ৪ কোটি টাকার ব্যালাষ্ট (পাথর) সরবরাহের কাজ দেওয়া হয়েছে । আরও প্রায় দুই কোটি টাকার আরেকটি কাজ দেওয়া হয়েছে ওই সিন্ডিকেটের সহযোগী প্রতিষ্ঠানকে। অথচ ই-জিপি টেন্ডারে, টেন্ডারের আবশ্যিক শর্তাবলী পূরণ করেননি।

মন্ত্রণালয়ের একজন প্রভাবশালী কর্মকর্তার নির্দেশে পশ্চিমাঞ্চল রেলের রেলওয়ের কর্মকর্তারা কারসাজি করে কাজ দিয়েছে বলে অংশগ্রহণকারী ঠিকাদাররা অভিযোগে বলেছেন। তারা অভিযোগ করে আরও বলেন এই সকল কাজের নামে নব্য যোগদানকৃত প্রধান প্রকৌশলীকে দেওয়া হয়েছে মোটা অংকের কমিশন।

পশ্চিম রেলের বঙ্গবন্ধু পুর্ব থেকে টাঙ্গাইলের মহেড়া পর্যন্ত রেল ট্র্যাকে বালাষ্ট (পাথর) সরবরাহের ১ কোটি ৯১ লাখ ২৩ হাজার টাকা ( টেণ্ডার কোড নং-৫৩৩৫২৬) এবং লালমনিরহাট-কাউনিয়া রেল ট্র্যাকে বালাষ্ট সরবরাহের ১ কোটি ৬০ লাখ ৮০ হাজার টাকার ( টেণ্ডার কোড নং- ৫৩৩৫২১) দুটি কাজ আফসার বিশ্বাসসকে দেওয়ার সুপারিশ করেছে পশ্চিমাঞ্চল রেলের প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে তিন সদস্যের টেণ্ডার কমিটি।

অন্যদিকে সান্তাহার-তালোড়া পর্যন্ত ট্র্যাক সংস্কারে ব্যালাষ্ট সরবরাহে ১ কোটি ৯০ লাখ টাকার ( টেন্ডার কোড নং-৫৩৩৫২৩) দেওয়া হয়েছে আফসার সিন্ডিকেটের আরেক প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল হাইটেক ইঞ্জিনিয়ারিংকে। অভিযোগ মতে, এসব প্রতিষ্ঠান টেন্ডারের আবশ্যক শর্তাবলী পুরণ করতে না পারলেও অদৃশ্য তদবিরের কারণে এই তিনটি প্রতিষ্ঠানকে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সুপারিশ দিয়েছে টেন্ডার কমিটি। এই সুপারিশ পাঠানো হয়েছে রেল মহাপরিচালকের দপ্তরে। এখন সিন্ডিকেটকে কার্যাদেশ দেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের অভিযোগে আরও জানা গেছে, ইজিপি টেণ্ডারে কারচুপির সুযোগ না থাকলেও টেন্ডার কমিটি সিন্ডিকেটকে যোগ্য উল্লেখ করে সুপারিশ দিয়েছে। সূত্র অনুযায়ী ইজিপি-টেন্ডারের নিয়মানুযায়ী এসব কাজের জন্য নিম্নদর দিলেও টেন্ডারের আবশ্যিক শর্তানুযায়ী অন্যান্য নথিপত্র ও নির্দিষ্ট টাকার অভিন্ন কাজের অভিজ্ঞতার সনদসহ সহায়ক সার্টিফিকেট অনলাইনে সংযুক্ত করেননি।

বিশেষ করে অনুরূপ কাজের নির্দিষ্ট সময়ে নিদিষ্ট অংকের কাজ সম্পাদনের অভিজ্ঞতা, ব্যাংক সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন নথিপত্র ই-জিপি পদ্ধতির এই টেণ্ডারে এসব নথিপত্র সংযুক্তির কথা বলা হয়েছিল। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলির মতে, টেণ্ডারের শর্তাবলী অনুযায়ী একটি কোন নথি অনলাইনে জমা না করলেই সেই দরপত্রদাতার প্রস্তাব সরাসরি বাতিল বলে বিবেচিত হবে।

কিন্তু পরবর্তীতে কেউ চাইলেও আর কোনভাবেই অনলাইনে বা সরাসরি মাধ্যমে বাদপড়া নথিপত্র দরপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে পারেন না। ইজিপির কোড নম্বর দিয়ে অনলাইনে প্রবেশ করে অংশগ্রহণকারী সকল ঠিকাদার পরস্পরের দেওয়া দর ও দাখিলকৃত নথিপত্র চেক করে দেখতে পারেন। ই-জিপিতে একবার নথিপত্র জমা করলে তা দ্বিতীয়বার সংশোধনের সুযোগ থাকে না। কিন্তু টেণ্ডার কমিটি ই-জিপির শর্তাবলী লঙ্ঘন করে তিনটি কাজ আফসার সিন্ডিকেটটে তিনটি কাজের সুপারিশ দিয়েছে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে পশ্চিমাঞ্চল রেলের প্রধান প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম ফিরোজী বলেন, এই টেন্ডারগুলির প্রক্রিয়া তিনি যোগদানের আগেই সম্পন্ন হয়েছে। সুতরাং তিনি এ বিষয়ে কিছু বলতে পারবেন না। তবে কমিশনের বিষয়টি তিনি সুকৌশলে এড়িয়ে যান।

এদিকে টেন্ডার কমিটির সদস্য পাকশীর ডিভিশনাল রেলওয়ে ম্যানেজার শহিদুল ইসলাম বলেন, ইজিপি টেন্ডারে কারসাজির সুযোগ নেই। ৯ গ্রুপের এসব কাজ কাগজপত্র দেখেই যারা যোগ্য তাদেরকে দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। বিশ্বাস কনষ্ট্রাকশানও দুটি গ্রুপের কাজে যোগ্য হয়েছেন। ফলে তাকে সুপারিশ দেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ