1. zillu.akash@gmail.com : admi2017 :
  2. editor@dailynewsbangla.com : Daily NewsBangla : Daily NewsBangla
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
রাসিক মেয়রের সহযোগিতায় হুইলচেয়ার পেলেন প্রতিবন্ধী জেসমিন খাতুন আসন্ন উপ-নির্বাচনে মহিলা সমর্থকদের রাসেলের পক্ষে ভোট প্রার্থনা ও পথসভা মহাদেবপুরে তথ্য অফিসের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্টিত দশমিনায় চলছে পূজা মন্ডপে প্রস্তুুতি, ব্যস্ত সময় পার করছে মৃৎ শিল্পীরা দশমিনায় ইউপি সচিব ও তথ্য সেবক এর বিরুদ্ধে জন্ম সনদে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ দৌলতপুরে বাদশাহ্ এমপি’কে বরণ করতে হাজারো মানুষের ঢল দশমিনায় তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় আপীল বিভাগ খুনীদের ফাঁসি বহাল উৎসবমুখর পরিবেশে নওগাঁয় আদিবাসী উড়াও সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব পালিত চার লেন সড়ক উন্নীতকরণ কাজের উদ্বোধন করলেন রাসিক মেয়র লিটন পটুয়াখালী জেলা পরিষদ কর্তৃক স্থাপিত বীর মুক্তিযোদ্ধা ভাস্কর্য উদ্বোধন

দৌলতপুরের বি,টি,পি হাইস্কুলের জরাজীর্ণ শ্রেণিকক্ষ নিয়ে উদ্বেগ

ডেইলী নিউজ বাংলা ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
ছবিঃ বি,টি,পি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জরাজীর্ন ভবন।

ডেইলি নিউজ বাংলা ডেক্স: কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বি.টি.পি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ শ্রেণিকক্ষ নিয়ে চরম উদ্বিগ্ন উৎকন্ঠায় শিক্ষক ও অভিভাবকরা। জরাজীর্ণ অবস্থার সঙ্গে যোগ হয়েছে আসন সংকট। আগামী ১২ সেপ্টেম্বর স্কুল খোলার ঘোষণায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তারা।বিদ্যালয়ের সহঃপ্রধান শিক্ষক রেজাউল হক বলেন, বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪১২ জন।

পাঠদানের জন্য ৫টি সেমি পাকা ক্লাস রুম রয়েছে। এর মধ্যে একটি রুম অনেক আগেই পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আর টিনশেড ভবনটি দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় জরাজীর্ণ হয়ে ব্যবহারের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে বড় দুটি শ্রেণি কক্ষ।

অভিভাবক সাইফুল ইসলাম ও আকরাম হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় এর আগে শ্রেণি কক্ষ নিয়ে কোন মাথাব্যথা ছিলোনা। এখন বিদ্যালয়ের ঘরের টিন ফুটো হয়ে আকাশ দেখা যায় একটু বৃষ্টি হলে শিক্ষার্থীসহ বই খাতা ভিজে যায়,আসন সংকটে এখানে স্বাস্থ্যবিধি পালন নিয়ে শংকা দেখা দিয়েছে।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক(গ্রন্থাগার ও তথ্যবিজ্ঞান) শামিম রেজা জানান,১৯৯০সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হলেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি।আজ প্রায় ২৩ বছর হলো সরকারী ভাবে অবকাঠামোর জন্য কোন বরাদ্দ আমরা পায়নাই উপজেলার মধ্যে আমাদের বিদ্যালয়টি সবচেয়ে অবহেলিত।

শুধুমাত্র দুর্বল অবকাঠামোর কারনে এই বিদ্যালয়ে সচেতন অভিভাবক তাদের ছেলে মেয়েকে ভর্তি করতে চাননা, বাড়ী থেকে দুরে হলেও অন্য
স্কুলে ভর্তি করান তাদের বাচ্চাদের। মাত্র চারটি কক্ষে ৪১২জন শিক্ষার্থীকে ক্লাশ করানো সম্ভব নয়।

সঃশিঃ শামিম আরো বলেন, ইতি মধ্যে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাননীয় সাংসদ আঃকাঃমঃ সরওয়ার জাহান বাদশাহ্ধসঢ়; এমপি বিল্ডিং বরাদ্দ দিয়েছে আশা রাখবো আগামীতে আমাদের বিদ্যালয়ের অবকাঠামোর দিকে মাননীয় সাংসদ সু-দৃষ্টি রাখবেন।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার সর্দার আবু সালেক বলেন, দৌলতপুরের অন্যান্য এমপিও ভুক্ত প্রতিষ্ঠানের চেয়ে বি,টি,পি মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি শিক্ষার মানোন্নয়নে ভালো ভুমিকা রাখলেও অবকাঠামোর দিক থেকে পিছিয়ে আছে, আশা রাখি আগামীতে উক্ত প্রতিষ্ঠানটিও সর্ট টাইমে সরকারী বরাদ্দের অবকাঠামো পাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ